মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

শিক্ষাবৃত্তির দরখাস্ত অনলাইনে দাখিলের সময়সীমা ১২/০২/২০১৯ থেকে ১৪/০৩/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত


প্রকাশন তারিখ : 2018-01-15


*** শুধুমাত্র অনলাইনে আবেদন করা যাবে এবং আবেদনের কোন হার্ডকপি গ্রহণ করা হবেনা ***

--- দরখাস্ত অনলাইনে দাখিলের সময়সীমা ১২/০২/২০১৯ থেকে ১৪/০৩/২০১৯ খ্রি. পর্যন্ত ---

 

আবেদনের নিয়মাবলী 

 

বিষয়:  ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের জন্য (১) সরকারের অসামরিক খাতের ১১ হতে ২০ গ্রেডে কর্মরত সরকারি  এবং তালিকাভুক্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় কর্মরত কর্মচারীর সন্তানদের ‘শিক্ষাবৃত্তি’/‘শিক্ষাসহায়তা’, (২) সরকারি ও তালিকাভুক্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার সকল গ্রেডের অক্ষম, অবসরপ্রাপ্ত ও মৃত কর্মচারীর সন্তানদের ‘শিক্ষাবৃত্তি’র দরখাস্ত অনলাইনে দাখিল করার নিয়মাবলী।

.

১১-২০ গ্রেডে কর্মরত সরকারি এবং তালিকাভুক্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় কর্মরত কর্মচারীর ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অধ্যয়নরত অনধিক ২ (দুই) সন্তানের জন্য ‘শিক্ষাবৃত্তি/ ‘শিক্ষাসহায়তা’ এবং সরকারি ও তালিকাভুক্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার সকল গ্রেডের অক্ষম, অবসরপ্রাপ্ত ও মৃত কর্মচারীর ৯ম শ্রেণি থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে অধ্যয়নরত অনধিক ২(দুই) সন্তানের জন্য ‘শিক্ষাবৃত্তি’র আবেদন করতে পারবেন;

২.

ঢাকা মহানগরীতে কর্মরত কর্মচারীদের ক্ষেত্রে ঢাকা মহানগর ও অন্য বিভাগের কর্মচারীদের ক্ষেত্রে নিজ নিজ বিভাগীয় কার্যালয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে;

৩.

বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের ওয়েব সাইট (www.bkkb.gov.bd ) এর “শিক্ষাবৃত্তির অনলাইন আবেদন” লিংকটিতে ক্লিক করে অথবা ব্রাউজারের এড্রেস বারে eservice.bkkb.gov.bd টাইপ করে Enter চাপুন;

৪.

নতুন ব্যবহারকারী হলে প্রথমে হোম পেজ থেকে “রেজিস্ট্রেশন” বাটনে ক্লিক করে রেজিস্ট্রেশন করুন এবং পূর্বে যারা “রেজিস্ট্রেশন” করেছেন, তারা মোবাইল নম্বর এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে প্রোফাইল তথ্য সংশোধনপূর্বক আবেদন করুন;

৫.

রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া:

(ক) কর্মচারীর ধরণ “কর্মরত” এবং কর্মক্ষেত্রের ধরণ “রাজস্বখাতভুক্ত” হলে পে-ফিক্সেশনের ভেরিফিকেশন নম্বর ও জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন (১৭ ডিজিট অথবা স্মার্ট কার্ডের নম্বর);

(খ) কর্মচারীর ধরণ “কর্মরত” এবং কর্মক্ষেত্রের ধরণ “বোর্ড তালিকাভুক্ত” হলে শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর (১৭ ডিজিট অথবা স্মার্ট কার্ডের নম্বর) দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন;

(গ) কর্মচারীর ধরণ "অক্ষম/ মৃত/ অবসরপ্রাপ্ত" এবং কর্মক্ষেত্রের ধরণ “রাজস্বখাতভুক্ত/ বোর্ড তালিকাভুক্ত” হলে পে-ফিক্সেশনের ভেরিফিকেশন নম্বর (যদি থাকে তাহলে দিন) এবং জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর (১৭ ডিজিট অথবা স্মার্ট কার্ডের নম্বর) দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন;

৬.

রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ায় মোবাইল নম্বরসহ অন্যান্য তথ্যাদি দিয়ে “রেজিস্ট্রেশন করুন” বাটনে ক্লিক করার পর আপনার মোবাইল নম্বরে ৬ ডিজিটের একটি ভেরিফিকেশন কোড যাবে। এই কোড নম্বরটি দিয়ে “যাচাই করুন” বাটনে ক্লিক করলে “অভিনন্দন, আপনার নিবন্ধন সফলভাবে সম্পূর্ন হয়েছে” এই ম্যাসেজ টি দেখাবে। কোড প্রদানের সময়সীমা ১৫ মিনিট;

৭.

হোম পেজ থেকে “লগইন” বাটনে ক্লিক করে মোবাইল নম্বর এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন এবং ড্যাসবোর্ড এর “আবেদনকারীর ছবি আপলোড করুন” বাটনে ক্লিক করে ছবি আপলোড করুন;

৮.

“শিক্ষাবৃত্তির আবেদন করতে এইখানে ক্লিক করুন” এই লিংকটিতে ক্লিক করে নির্দেশাবলী অনুযায়ী পরবর্তী ধাপে আবেদন ফরম পূরণ করুন;

৯.

আবেদন ফরমের প্রতিটি কলাম যথাযথভাবে পূরণ করে ছাত্র/ ছাত্রী বিগত বাৎসরিক/ বোর্ড/ সেমিস্টার/ টার্ম ফাইনাল যে পরীক্ষায় পাস করেছে তার মূল মার্কশীট এর ফটোকপি ১ম শ্রেণির গেজেটেড অফিসার কর্তৃক/ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক কর্তৃক সত্যায়িত করে স্ক্যান কপি আবেদনের সাথে সংযুক্ত করুন;

১০.

কর্মচারী অবসরপ্রাপ্ত হলে অবসর গ্রহণের আদেশের অথবা মৃত হলে মৃত্যু সনদের সত্যায়িত কপি সংযুক্ত করুন;

১১.

ফরম যথাযথভাবে পূরণ করে “আবেদন সংরক্ষণ ও প্রিন্ট করুন” বাটনে ক্লিক করে আবেদন সংরক্ষণ করে প্রিন্ট করুন;

১২.

আবেদন ফরম প্রিন্ট করার পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের স্বাক্ষর ও সীল, কর্মচারীর স্বাক্ষর, কর্তৃপক্ষের স্বাক্ষর ও সীল এবং স্মারক নং ও তারিখ দিয়ে পূর্ণাঙ্গ পূরণকৃত ফরমের স্ক্যান কপি “সংযুক্তি” ধাপে গিয়ে সংযুক্ত করে আবেদন “চূড়ান্তভাবে দাখিল করুন” বাটনে ক্লিক করে দাখিল করুন। আবেদনটি সফলভাবে দাখিল হলে আবেদনকারী তাঁর মোবাইল ফোনে আবেদন গ্রহণের ডায়েরি নম্বর ও তারিখ সম্বলিত একটি ক্ষুদেবার্তা পাবেন এবং পরবর্তীতে অনলাইনে লগইন করে আবেদনের অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবেন;

 

১৩.

স্বামী/স্ত্রী উভয়ই সরকারি চাকরিতে কর্মরত হলে কেবল একজনই সন্তানদের ‘শিক্ষাবৃত্তি’ /‘শিক্ষাসহায়তা’ র জন্য আবেদন করতে পারবেন;

১৪.

চাকরিরত, অনিয়মিত এবং বিবাহিত এরুপ ছাত্র/ ছাত্রীগণ এ ‘শিক্ষাবৃত্তি’ / ‘শিক্ষাসহায়তা’ লাভের যোগ্য নন;

১৫.

১১-২০ গ্রেডে কর্মরত সরকারি এবং তালিকাভুক্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় কর্মরত কর্মচারীর সন্তানদের ‘শিক্ষাবৃত্তি’/ ‘শিক্ষাসহায়তা’ পাওয়ার জন্য বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র/ ছাত্রীকে পূর্ববর্তী বাৎসরিক / বোর্ড/ সেমিস্টার/ টার্ম ফাইনাল পরীক্ষায় প্রত্যেক বিষয়ে উত্তীর্ণ হয়ে নিম্নবর্ণিত জিপিএ/ সিজিপিএ অর্জন করতে হবে:

               শ্রেণি

‌‌‍‘শিক্ষাবৃত্তি’ পাওয়ার যোগ্যতা

‘শিক্ষাসহায়তা’ পাওয়ার যোগ্যতা

মাধ্যমিক (৬ষ্ঠ-১০ম শ্রেণি)

জিপিএ  ৫ অথবা গড়ে ৮০% নম্বর

জিপিএ ৩ অথবা গড়ে ৫০% নম্বর

উচ্চ মাধ্যমিক (একাদশ- দ্বাদশ)

                    ঐ

                         ঐ

উচ্চশিক্ষা (স্নাতক- স্নাতকোত্তর)

সিজিপিএ ৩.৫ হতে ৪

নূন্যতম সিজিপিএ ২.৫

 

 

       

 

১৬.

সরকারি ও তালিকাভুক্ত স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার সকল গেডের অক্ষম/ অবসরপ্রাপ্ত/ মৃত কর্মচারীদের সন্তানদের ‘শিক্ষাবৃত্তি’ পাওয়ার জন্য বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র/ ছাত্রীকে পূর্ববর্তী বাৎসরিক/ বোর্ড/ সেমিস্টার/ টার্ম ফাইনাল পরীক্ষায় প্রত্যেক বিষয়ে উত্তীর্ণ হয়ে নিম্নবর্ণিত জিপিএ / সিজিপিএ অর্জন করতে হবে:

               শ্রেণি

‘শিক্ষাবৃত্তি’ পাওয়ার যোগ্যতা

মাধ্যমিক (নবম – দশম শ্রেণি)

জিপিএ ৩ অথবা গড়ে ৫০% নম্বর

উচ্চ মাধ্যমিক (একাদশ- দ্বাদশ)

                         ঐ

উচ্চশিক্ষা (স্নাতক- স্নাতকোত্তর)

নূন্যতম সিজিপিএ ২.৫

 

 

১৭.

অসম্পূর্ণ আবেদন বিবেচনা করা হবে না। অনলাইনে আবেদন দাখিলের ক্ষেত্রে যে কোন কারিগরি সহায়তার জন্য যোগাযোগ করুন (১) মো: পমিরুল ইসলাম, সফটওয়্যার প্রকৌশলী, ০২-৯৮৮৪৮১৪ (২) বিল্লাল মিয়া, সহকারী প্রোগ্রামার, ০১৭৫৩-৬৯৩৯১২। কারিগরি বিষয় ব্যতিত অন্য কোন তথ্য/সহযোগিতার জন্য যোগাযোগ করুন (১) মোঃ আজমল হোসেন, উপপরিচালক (উন্নয়ন), ০২-৯৩৪৬৮৪৫ (২) মোঃ আবু হাসান, গবেষণা কর্মকর্তা, ০১৯২০-৮২২৯৩৬।

     

 


Share with :

Facebook Facebook